বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম

প্রিয় পাঠক, আমাদের অনেকের বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে সঠিক ধারণা নেই। বিকাশ ঋণ টার্মস এন্ড কন্ডিশন লিখে অনেকে গুগল সার্চ করেন। সিটি ব্যাংক এই লোন সেবাটি বিকাশ গ্রাহকদের সুবিধার্থে চালু করেছেন। আমি এই পোস্টে বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম বিস্তার আলোচনা করব।
বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম
বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল ঋণ বিতরণ ব্যবস্থা সেবা চালু করেন সিটি ব্যাংক ও বিকাশ যৌথভাবে। বিকাশ ঋণের সবথেকে বড় সুবিধা আপনার একাউন্টে কোন প্রকার জামানত দিতে হবে না। ঋণ গ্রহণের পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে ৯% হারে সম-পরিমাণে তিনবারে ঋণের টাকা পরিশোধ করতে হবে। বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ভূমিকা

আমরা কমবেশি সবাই মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ এর সাথে পূর্ব পরিচিত। অনাকাঙ্ক্ষিত বিপদ থেকে বাঁচতে অথবা ইমারজেন্সি বেশ ভালো পরিমাণ টাকা দরকার। এই সময় আপনার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব কারো কাছে টাকা চেয়ে ছোট হওয়া দরকার নেই। সাময়িক বিপদ থেকে বাঁচতে বিকাশ নিয়ে এলো সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার সুযোগ।

বিকাশ ঋণ কত টাকা সুদ দিতে হবে

আপাতদৃষ্টিতে দেখতে গেলে বিকাশ ডিজিটাল লোন নিতে আপনাকে কোন জামানত দিতে হবে না। সিটি ব্যাংক যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে পরিচালিত হয়। তাই বাংলাদেশ ব্যাংকের লোন নিতে সুদ দিতে হয়। এই সুদের পরিমাণ মাত্র ৯ শতাংশ।
আর এই নিয়ম মেনে বাৎসরিক ৯ শতাংশ হারে ডিজিটাল লোন দিচ্ছে বিকাশ। অর্থাৎ বছরে ১০০ টাকায় আপনাকে ৯ টাকা হারে সুদ প্রদান করতে হবে। তাহলে আমরা বলতে পারি ১০০০০ টাকায় আপনাকে ৯০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। তিন মাসের মধ্যে।

বিকাশ ঋণ পরিশোধের নিয়ম

আপনি যেহেতু বিকাশ এর কাছে ঋণী আপনাকে ঠিক সময়ে ঋণ পরিশোধ করতে হবে। লোন পরিশোধ করার জন্য আপনার ফোনে এবং অ্যাপের মাধ্যমে বিকাশ ঋণ সংক্রান্ত নোটিফিকেশন পাবেন। বিকাশ ঋণ নেওয়ার পরবর্তী তিন মাসে সমপরিমাণ কিস্তিতে গ্রাহকের বিকাশ একাউন্ট থেকে প্রতি মাসের নির্ধারিত সময় টাকা স্বয়ংক্রিয়ভাবে কেটে নেওয়া হবে।
এটির জন্য ঋণ সমপরিমাণ টাকা আপনার বিকাশ একাউন্টে রাখতে হবে। অন্যথায় বিলম্ব ফি প্রযোজ্য হবে।বিলম্ব ফি আপনার ঋণের পরিমাণের সাথে ২% হারে বাড়বে। বিকাশ আপনার ঋণ পরিশোধের স্বচ্ছতা যাচাই করবে পরবর্তী ঋণের জন্য।

আরও পড়ুনঃ অনলাইনে কোন কাজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি ২০২৩

বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম আপনি যদি লোন নিয়ে লোন পরিষদ করতে গুড়ি-মুসি করেন, এক্ষেত্রে পরবর্তীতে আপনি লোন নাও পেতে পারেন। তাই সময়মতো পরিষদ করুন পরবর্তী লোন এর জন্য।

বিকাশ ঋণ টার্মস এন্ড কন্ডিশন

  • ব্যাংক প্রসেসিং ফি মুক্ত
  • ৩ মাস মেয়াদি লোন
  • ব্যাংক একাউন্ট বা জামানত লাগবে না
  • কোন কাগজপত্র লাগবে না
  • অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স থেকে অটো পরিষদ সুবিধা
  • আবেদন করার সঙ্গে সঙ্গে লোন পেয়ে যাবেন 

বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম

বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে কোন ঝামেলা ছাড়াই আপনি ঋণ নিতে পারবেন। সবাই না বরং কিছু সংখ্যক নির্বাচিত বিকাশ গ্রাহক এই সেবাটি গ্রহণ করতে পারবেন। বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার জন্য আপনার বিকাশের লোন আইকনে প্রেস করুন। ঋণ পাওয়ার জন্য গ্রাহককে প্রথমে ই-কেওয়াইসি ফরমে বিকাশকে দেওয়া সব তথ্য সিটি ব্যাংককে দেওয়ার পারমিশন দিতে হবে।
বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম
আপনার ঋণের পরিমাণ সহ বিকাশ একাউন্ট পিন নাম্বার দিয়ে সেন্ড করুন। সাথে সাথেই আপনার বিকাশ একাউন্টে ঋণ পরিমাণ টাকা চলে আসবে। এই সেবাটি সবার জন্য সহজলভ্য নয়। তবে এই প্রকল্পটি সফল হলে আরো বেশি পরিমাণ গ্রাহক উন্মুক্ত ভাবে সেবাটি পাবে।

পাঠকের মতামত

সম্মানিত পাঠকগণ, এতক্ষণে নিশ্চয়ই জেনে গেছেন কিভাবে আপনারা, বিকাশ দিয়ে ১০ হাজার টাকা ঋণ পাওয়ার নিয়ম। এছাড়াও অনলাইন ইনকাম লাইফ স্টাইল ও প্রযুক্তি সম্পর্কে আর্টিকেল পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন। সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url