চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায়

 

সৌন্দর্যের অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে আমাদের চুল। চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায় চুল নিয়ে সমস্যা কমবেশি সবারই আছে। স্বাভাবিক নিয়মে প্রতিদিন কিছু না কিছু চুল পড়বেই। তবে চুল পড়ার পাশাপাশি নতুন চুল যদি না গজায়, তখনই আমাদের চুল পাতলা হতে শুরু করে। নতুন চুল গজানোর তিনটি উপায় এবং চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায় নতুন চুল গজানোর বিষয়টি নির্ভর করে আপনার উপর। আপনি কি খাচ্ছেন, কিভাবে চুলের যত্ন নিচ্ছেন তার উপর নির্ভর করবে।
চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায়
চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায় মাত্রাতিরিক্ত চুল পড়ার কারণে মাথায় চুল পাতলা হয়ে যাচ্ছে। এতে সৌন্দর্য হারাচ্ছেন আপনি। নারী বা পুরুষ সবাই সমস্যায় ভুগছ। নতুন চুল গজানোর ক্ষেত্রে পুষ্টিকর খাবার আর চুল পরিষ্কার রাখার কোন বিকল্প নেই। এটি থেকে মুক্তির উপায় ও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে নিচে আলোচনা করেছি বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ভূমিকা

যত্ন নিলে কি না সুন্দর হয়। যত্ন নিলে চুল ও সুন্দর হবেই। মাথায় গজাবে নতুন চুল। কিন্তু শুধু যত্ন নিলে তো হবে না, জানতে হবে সঠিক উপায়। অনেক উপকারী উপাদানও সঠিক প্রয়োগ না করলে ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। জেনে নেওয়া যাক চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায়।

নতুন চুল গজানোর জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যাভাস

আমাদের চুল মূলত কেরাটিন দিয়ে গঠিত, এটি মূলত অ্যামিনো এসিড দিয়ে তৈরি এক ধরনের প্রোটিন। পর্যাপ্ত পরিমাণ প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। নতুন চুল গজাতে অবশ্যই আপনার শরীরকে পর্যাপ্ত পরিমাণ অ্যামিনো এসিড সরবরাহ করতে হবে। মাংস, মাছ, দুধ, ডিম - পনির এগুলোর অত্যন্ত একটি আপনার খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন রাখার চেষ্টা করুন। মটরশুঁটির, কলা, বাদাম, সয়াবিন এসব থেকেও পেতে পারেন। তবে নন ভেজিটেবল খাবারে প্রোটিনের পরিমাণ তুলনামূলক বেশি থাকে।
কালোজিরা আমাদের নতুন চুল গজানোর জন্য সহায়ক। খাবারে কালোজিরা ও মাথায় কালোজিরার তেল ব্যবহার খুব উপকার।
লেবু, কমলা, আনারস, কামরাঙ্গা, পেয়ারা, কাঁচা মরিচ পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। নতুন চুল গজানো ও চুল বৃদ্ধির জন্য দারুন উপকার।
আয়রন ও জিঙ্ক মাথার কষে অক্সিজেন পরিবহন করতে সাহায্য করে আর নতুন টিস্যু গজাতে এবং প্রতিরোধে সহায়তা করে। পরিমাণ মতো আয়রন ও জিঙ্ক দ্রুত এবং নতুন চুল গজানোর জন্য সহায়ক। মটরশুঁটির, কলিজা, বাদাম, মাংস, দুধ সবগুলো উপাদানে আয়রন ও জিঙ্ক বিদ্যমান।

নতুন চুল গজানোর তিনটি উপায়

  • প্রথম উপায়
আমাদের চুলের গোড়ায় হেয়ার ফলিকল থাকে। ভাইব্রেশন এর মাধ্যমে যদি ফলিকল উদ্দীপিত করা যায় তবে নতুন চুল গজানো সম্ভব না থাকে। বাজারে ভাইব্রেটিং ম্যাসেজার কিনতে পাওয়া যায়। এটির সাহায্যে আপনি স্ক্যাল্পে চক্রাকারে ঘুরিয়ে আপনার মাথায় ভাইব্রেটিং ম্যাসাজ নিতে পারেন। যে জায়গায় বেশি চুল পড়ছে তাতে বেশি মনোযোগ দিয়ে দিনে ৫ থেকে ১০ মিনিট আপনার স্ক্যাল্প ভাইব্রেট করুন। ভালো ফল পেতে দিনে তিনবার করতে হবে আপনাকে।
  • দ্বিতীয় উপায়
দ্বিতীয় উপায় হল ম্যাসাজ করা। নিয়মিত চুল ম্যাসাজ করতে হবে। এতে করে স্ক্যাল্পে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে এবং স্ক্যাল্প উদ্দীপিত হবে। এক টেবিল চামচ ভিটামিন ই নিয়ে মাথায় মেসেজ করতে থাকুন। ভিটামিন ই চুলের জন্য প্রয়োজনীয় নিউট্রেশন যোগান দেয়। ভিটামিন ই এর সাথে চা এর নির্দেশ যোগ করতে পারেন। এ দুটো ভালোভাবে মিশিয়ে হাতের তালু এবং আঙ্গুলের সাহায্যে পুরো মাথার চুলের গোড়ায় গোড়ায় লাগিয়ে দিন এভাবে পাঁচ ছয় মিনিট ম্যাসাজ করুন। মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে সম্পূর্ণ চুল আঁচড়ে নিন। কিছুক্ষণ পর সাধারণ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। চুল গজানোর জন্য দিনে তিনবার ম্যাসাজ করতে হবে। কিন্তু বারবার শ্যাম্পু ব্যবহার করা যাবে না এতে চুলের ক্ষতি হবে।
  • তৃতীয় উপায়
এমন শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে যেটা আপনার স্ক্যাল্পের মৃত কোষগুলো ঝরে যেতে সাহায্য করবে। এই মৃত কোষগুলো স্ক্যাল্পের ফলিকল ব্লক করে রাখে যে কারণে নতুন চুল গজানোর পথ বাধা পাই। কেননা তখন রক্ত সঞ্চালন কমে যায়। দিনে অত্যন্ত একবার অল্প পরিমাণ শ্যাম্পু নিয়ে মাথায় ম্যাসাজের মত করে লাগিয়ে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায়

  • পেঁয়াজের রস চুলের গোড়ায় ভালো করে লাগিয়ে .১০ মিনিট রাখুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে নতুন চুল গজাবে।
  • শুকনা আমলকি পানিতে ভিজিয়ে আপনার মাথায় লাগাতে পারেন।
  • মেহেদী পাতা কিছুদিন ঘন ঘন ব্যবহার করুন। পাতা বেটে মাথায় লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ পরে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ত্বকের নানা সমস্যা সমাধানে বেশ পরিচিত হচ্ছে নিমপাতা। শুধু ত্বক নয় চুলের যত্ন নিম পাতা বেশ কার্যকরী। এক মুঠো নিমপাতা নিয়ে এক লিটার পানিতে ফুটিয়ে নিন। মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে বোতলে সংরক্ষণ করুন। শ্যাম্পু করার পর সপ্তাহে অত্যন্ত একদিন নিমের এই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে।
  • নিয়মিত চুল পরিষ্কার রাখা এবং আঁচড়ানো। কিন্তু অতিরিক্ত আঁচড়ানো চুল পড়া বাড়িয়ে দেয়।
  • কালোজিরা ও মেথি প্রথমে শুকিয়ে নিতে হবে। এরপর গুড়া করে নিয়ে নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি ফুটিয়ে ঠান্ডা করে কাচের বোতলে সংরক্ষণ করুন। সপ্তাহে তিন দিন আপনার চুলে ব্যবহার করুন এটি প্রায় দুই সপ্তাহ পর্যন্ত ভালো থাকবে।
  • খাঁটি কালোজিরা তেল বা নির্যাস বেশি বেশি ব্যবহার করতে পারেন।
  • চুলের যত্নে উপকারী উপাদান মেথি। এটি নতুন চুল গজাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে। পরিষ্কার পানিতে মেথি ভিজিয়ে রাখুন সারারাত সকালে উঠে এটি ব্লেন্ড করে নিন। এবার এই ব্লেন্ড করা মেথি চুলে সরাসরি ব্যবহার করুন অথবা দই-মধুর সঙ্গে মিশিও ব্যবহার করতে পারেন। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন এবং হালকা কোন শ্যাম্পু দিয়ে পরিষ্কার করে নিন।
  • চুলের জন্য নারকেল তেল সবচেয়ে কার্যকরী। নারকেল তেলে প্রচুর ফ্যাটি এসিড আছে। এ তেল ব্যবহারে চুল ভিতর থেকে পুষ্টি পায়। এজন্য চুল দ্রুত লম্বা হয় সেই সঙ্গে নতুন চুল গজায়। নারকেল তেল ব্যবহারে চুল হয় ঝলমলে ও কোমল।
  • ধূমপানের প্রভাব চুলের উপরেও পড়ে থাকে। কেটে চুলের ফলিকল নষ্ট হয়। ফলে চুল পড়া বেড়ে যায়। এ কারণেই ধূমপাই দের চুল দ্রুত পেকে যায় ও টাক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
কথায় বলে যত্ন করলে নাকি রত্ন মেলে চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায়। নিয়মিত যত্ন নিন, পদ্ধতি গুলো মেনে চলুন দেখবেন আপনার মাথায় নতুন চুল গজাতে শুরু করেছে।

পাঠকের মতামত

সম্মানিত পাঠকগণ, নিশ্চয়ই এ পোস্টটি পড়ে আপনারা চুল পড়া বন্ধ ও নতুন চুল গজানোর উপায় জেনে গেছেন। পোস্টটি আপনার উপকারে আসলে এখনই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে ফেলুন। এছাড়াও স্বাস্থ্য বিষয়ক ও লাইফ স্টাইল বা চমকপ্রদ আর্টিকেল পড়তে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন। পোস্টটি পুরোটা পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url