শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায়

 

প্রিয় পাঠক, শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় শ্বাসকষ্ট জড়িত সমস্যায় অনেকেই ভুগেন, আবার অনেকে মনে করেন এটি জিনগত রোগ। শ্বাসকষ্ট দূর করতে কার্যকরী ৩ টি ব্যায়াম কিছু কিছু সময় শরীরের অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্য সমস্যার কারণেও শ্বাসকষ্ট হতে পারে। শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় আবার কারো কারো অস্থায়ীভাবে ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা থাকতে পারে। অনেক সময় অসাবধানতার কারণে নাকে ধুলাবলি ঢোকার ফলে মাঝেমধ্যে হালকা শ্বাসকষ্ট হতে পারে।
শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায়
আবার অনেক সময় দেখা যায়, নিউমোনিয়া, সর্দি কাশি, হৃদরোগের কারণ, রক্তস্বল্পতা, ব্রংকাইটিস, পেটের সমস্যা ও গ্যাস হজমের সমস্যা, এলার্জি, অতিরিক্ত মানসিক চাপ এবং টেনশন, হাঁপানি থাকলে শ্বাসকষ্ট হয়। শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় ফুসফুসের সমস্যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দায়ী হয়ে থাকে এটি থেকে মুক্তির উপায় ও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে নিচে আলোচনা করেছি বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ভূমিকা

শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় আমরা এই টপিক নিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করে থাকি। বর্তমানে করোনাকালীন সময়ের পর থেকে প্রায় কমবেশি সবার মুখে শোনা যায় শ্বাসকষ্টের কথা। শ্বাসকষ্ট সবার ক্ষেত্রে একরকম না কারো অনিয়মিত হতে পারে আবার কারো নিয়মিত হতে পারে। নিয়মিত শ্বাসকষ্ট হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

শ্বাসকষ্ট দূর করার ঘরোয়া উপায়

  • শ্বাসকষ্টের চিকিৎসায় মধুর ব্যবহার বহুকাল ধরে হয়ে আসছে। এক চা চামচ মধু একগ্লাস গরম পানিতে মিশিয়ে দিলে তিনবার করে খেলে আপনি দারুন উপকার পাবেন।
  • শ্বাসকষ্টের প্রকোপ কমাতে কফি দারুন উপকারী। এক কাপ গরম কফি খেলে আপনার শ্বাসনালী নিঃশ্বাস নেওয়ার জন্য খুলে যায় ফলে অক্সিজেন খুব সহজে আপনার ফুসফুসে প্রবেশ করতে পারে। কফি যত কড়া খাবেন তত বেশি উপকার পাবেন। দিনে ৩ কাপের বেশি কফি কখনোই খাবেন না। কফি যতটা উপকারী, বেশী মাত্রই খেলে শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর।
  • পেঁয়াজ এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান, পেঁয়াজ শ্বাসনালী প্রদাহ কমিয়ে দেয় ও অ্যাজমার প্রকোপ কমাতে বিশেষ অবদান রাখে। তবে এক্ষেত্রে কাঁচা পেঁয়াজ খেলে বেশি উপকার হয়।
  • এক কাপ দুধে পরিমাণ মতো রসুন দিয়ে ভালো করে দুধটা ফুটিয়ে নিন। দুটা ফোটানো হলে হালকা ঠান্ডা করে খেয়ে ফেলুন। খাওয়ার পর দেখবেন আপনার শ্বাসকষ্ট কমতে শুরু করছে।
  • শ্বাসকষ্ট কমাতে সরিষার তেল দারুন উপকারি উপাদান। আপনার শ্বাসকষ্ট হলে কিছু পরিমাণ সরষের তেল গরম করে বুকে পিঠে ভালো করে মালিশ করতে পারেন। গরম তেলটি রেসপিরেটারি প্যাসেজকে খুলে দেয় ফলে শ্বাসকষ্ট ধীরে ধীরে নিরাময় হয়।
  • গবেষণায় দেখা গেছে আদার মধ্যে অনেক উপকারী উপাদান থাকে যা আমাদের শ্বাসনালীতে অক্সিজেনের প্রভাব বৃদ্ধি করে। আধা খাওয়ার কিছুক্ষণ পর আপনা আপনি শ্বাসকষ্ট কমতে থাকে।

শ্বাসকষ্ট দূর করতে কার্যকরী ৩ টি ব্যায়াম

  • পদ্মাসনে বসুন আপনার শিরদাঁড়া সোজা রাখুন এবার ডান হাতের তর্জনী দিয়ে বাঁ নাক চেপে ধরে ডান নাক দিয়ে জোরে শ্বাস নিন। ৫-১০ সেকেন্ড শ্বাস ধরে রাখুন বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে ডান নাক চেপে বাঁ নাক দিয়ে নিঃশ্বাস ছাড়ুন। দুই নাক দিয়ে এভাবে ১০ বার করুন।
  • সোজা হয়ে দাঁড়ান দুই পায়ের মধ্যে এক ইঞ্চির মত ফাঁক রাখুন হাঁটু না ভেঙ্গে কোমর থেকে গোটা শরীরকে নিচে ঝুকিয়ে দিন। দুই হাত দিয়ে হাটুতে হাত দিতে পারবেন এরকমভাবে শরীরটাকে নিচে ঝুকিয়ে রাখুন। হ্যামস্ট্রিং এ টান না লাগা পর্যন্ত এভাবেই থাকুন।
  • লম্বা হয়ে শুয়ে পড়ুন আপনার পুরো শরীর ছেড়ে দিন পা দুটো সোজা ও দুই হাত শরীরের সাথে লম্বা করে রাখুন। এমন ভাবে কাজটা করুন যেন মনে হয় আপনার শরীরের কোন প্রাণ নেই। হাতের তালু দুটো সিলিং এর দিকে মুখ করে রাখুন। এমত অবস্থায় চোখ বন্ধ করে শুয়ে নিজের নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস গুনার চেষ্টা করুন। এভাবে ১০ থেকে ১৫ মিনিট থাকুন দেখবেন আপনার শ্বাস নিতে আগের থেকে কষ্ট কম হচ্ছে।

শ্বাসকষ্ট কেন হয় এটি কি জিনগত

আমাদের প্রথমে বুঝতে হবে, শ্বাসকষ্ট কিন্তু অসুখ নয়, এটি মাত্র অসুখের বহিঃপ্রকাশ। অ্যাজমা থেকে মূলত অসুখগুলি দেখা দেয়। অনেক সময় এজমার সাথে জিনগত যোগ থাকতে পারে। এ সংখ্যাটা মাত্র ১৫ থেকে ২০ শতাংশ। অনেক সময় বাচ্চাদের অ্যাজমা থাকে এটি কোন না কোন রোগের কারণেই হয়। যেমন ব্রংকাইটিস, বুকে কফ জমে যাওয়। পাঁচ বছর পরেও যদি দেখা যায় বাচ্চার অ্যাজমার সঙ্গে শ্বাসকষ্ট বাড়তেছে তাহলে সঠিক চিকিৎসা করালে এই রোগ থেকে মুক্তি মেলে।

শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায়

কোভিড আমাদের প্রত্যেকের মনেই ভয় ধরিয়ে দিয়ে গেছে। কারণ কোভিডের সময় রোগীদের ফুসফুস শুকিয়ে যাওয়া, ফুসফুসের ক্ষতি নিয়ে বারবার আলোচনা হচ্ছিল ফলে অনেক ক্ষেত্রে রোগীরা প্যানিক বা আতঙ্কে ভুগছিলেন। শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় বায়ু দূষণ আমাদের দেশের একটি সাধারণ সমস্যা। আর এই বায়ু দূষণের ফলে সৃষ্ট বিভিন্ন রোগের মধ্যে একটি মারাত্মক রোগ হচ্ছে শ্বাসকষ। এছাড়া বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তন এবং বায়ুমন্ডলে কার্বন-ডাই-অক্সাইড বেড়ে চলার কারণে দেশব্যাপী গত কয়েক দশকের সব বয়সীদের মধ্যেই শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা প্রচুর পরিমাণে বেড়েছে। পোস্ট সূচীপত্র এ আমরা কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট আলোচনা করেছি।

পাঠকের মতামত

সম্মানিত পাঠকগণ, নিশ্চয়ই এ পোস্টটি পড়ে আপনারা শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির দারুন উপায় জেনে গেছেন। পোস্টটি আপনার উপকারে আসলে এখনই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে ফেলুন। এছাড়াও স্বাস্থ্য বিষয়ক চমকপ্রদ বা আর্টিকেল পড়তে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন। পোস্টটি পুরোটা পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url