রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত

 

আমরা প্রায় সকলেই রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত এই টপিকস নিয়ে খোঁজাখুঁজি করে থাকি। আমাদের রাতে ঠিকমতো ঘুম না হলে পরের দিন কোন কাজে মন বসে না। একজন মানুষের সুস্থ থাকার অন্যতম নিয়ামক হলো ঘুম। ঘুমের আগে কি ধরনের রিলাক্স করবেন একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের প্রতিদিন গড়ে ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন। রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত আমরা এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনাকে উপায় বলে দিব।
রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত
দিনের পর দিন যদি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে, তবে নানাবিধ রোগের ঝুঁকি বাড়ে, মনোযোগ কমে যায়, অবসাদ আর ক্লান্তিবোধ গ্রাস করে। ঘুমের ব্যাঘাত জীবনের গুণগতমানকে ব্যাহত করে। ভালো ঘুমের জন্য চাই একটি ইতিবাচক পরিবেশ এবং কিছু ভালো অভ্যাস গড়ে তোলা। আরো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে নিচে আলোচনা করেছি বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ভূমিকা

আপনি ক্লান্ত, আপনার লম্বা ঘুমের দরকার শুয়ে পড়লেন বিছানায়। কিন্তু কোন ভাবে আপনার ঘুম আসতেছে না। কোন না কোন সময় বহু লোকের এ সমস্যা দেখা যায়। ঘুমানোর মাধ্যমে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়, টক্সিন নামক পদার্থ শরীর থেকে বের করে দিয়ে আমাদের শরীরের কর্মক্ষমতা বাড়াতে ঘুমের বিকল্প নেই। পরবর্তী দিনের শক্তি ও দক্ষতার অনেকটা নির্ভর করে পর্যাপ্ত ঘুমের উপর।

কি খাচ্ছেন বা পান করছেন সেদিকে নজর রাখুন

  • অনেকেই খালি পেটে ঘুমোতে পারেন না। তবে একেবারে ভরপেট খেয়ে বিছানায় ঘুমোতে গেলে অসুবিধা হতে পারে।
  • অ্যালকোহল বা মদ্যপান আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তে সাহায্য করতে পারে - কিন্তু আপনার সেই ঘুম দীর্ঘস্থায়ী হবে না। যাকে বলে 'র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট' বা 'আরইএম স্লিপ' - এটা মানুষের স্মৃতি ও শিক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং অগভীর ঘুমে তার ক্ষতি হয়। এছাড়া মদ্যপানের ফলে শরীরে প্রস্রাব বেশি তৈরি হয়, তাই রাতে টয়লেটে যাবার জন্য ঘুম ভেঙ্গে যাবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।
  • আপনার ঘুমের সময়ের প্রায় চার ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খেয়ে নিন। এবং ভারী গুরুপাক খাবার বা চিনিযুক্ত খাবার বর্জন করুন। এতে ঘুম না হওয়া বা রাতে জেগে ওঠার সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।
  • প্রকৃতপক্ষে ভালো ঘুমের প্রক্রিয়া শুরু হয় বিছানায় যাবার অনেক আগে। তাই ঘুমাতে যাবার অত্যন্ত .৬ ঘন্টা আগে থেকেই ক্যাফেইন আছে এমন কোন পানীয় পান করা বাদ দিন।
  • ক্যাফেইন জিনিসটা আপনার শরীরে থাকে অত্যন্ত ৯ ঘন্টা। কাজেই ভালো ঘুম চাইলে দুপুর .১২ টার পর থেকেই চা, কফি এবং কোক পেপসির মতো 'থ্রিজি ড্রিঙ্কস' পান করা বাদ দিন।

ঘুমের সাথে স্বাস্থ্যের সম্পর্ক

ঘুমানোর আগে গোসল করতে হবে বা দাঁত মাজতে হবে এগুলো বেশ উপকারী। আসল কথা হচ্ছে, ঘুমের জন্য একটি আদর্শ পটভূমি তৈরি করা। প্রতিদিন এক সময়ে ঘুমাতে যান, ঘুমের আগে উত্তেজক বা অ্যালকোহল পান ছেড়ে দিন, ঘরে ঘুমের পরিবেশ তৈরির দিকে করা নজর দিন। রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত আমাদের বেডরুম হওয়া উচিত ঘুমের জায়গায়, অন্য কিছুর নয়।
যে ঘর অন্ধকার, অতিরিক্ত গরম নয়, অনেক যন্ত্রপাতি বা মনোযোগ অন্যদিকে সরিয়ে নেয় এমন কোন কিছুই নেই। ঘুমের এক ঘন্টা আগে থেকে টিভি স্মার্ট ফোন থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। এগুলো থেকে যে নীল আলো ছড়ায় তা আপনার মস্তিষ্ককে ঘুমাতে দেয় না। যদি আপনি রেডিওতে কিছু শোনেন তাহলে স্লিপ টাইমার ব্যবহার করুন যাতে এটা একটা নির্দিষ্ট সময় বন্ধ হয়ে যায়।

ঘুমের আগে কি ধরনের রিলাক্স করবেন

রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত বিছানায় যাবার আগে এমন একটা কিছু করুন যা আপনার দেহ মনকে চাপমুক্ত করবে। এটা আপনাকে প্রতিদিনই করতে হবে, যাতে এটা করলে আপনার শরীর ও মস্তিষ্ক বুঝে যায় যে ঘুমের সময় হয়েছে। যেকোনো কিছু হতে পারে। হালকা গরম পানিতে গোসল, মেডিটেশন বা ধ্যান করা, আপনার জীবনসঙ্গের সাথে কথা বলা, ডায়েরি লেখা, বই পড়া, বা আলো কমিয়ে দিয়ে গান শোনা।
কেমন সংগীত ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযোগী ? ২০১৫ সালে ম্যাক্স রিখটার নামে একজন কম্পোজার নানা গবেষণার পর ৮ ঘণ্টার সঙ্গীত রচনা করেছেন শুধু ঘুমের জন্য। যাই হোক, আপনি ঘুমের জন্য যে সংগীত ই শুনুন না কেন - আসল শর্ত হলো সেটা শুনে আপনার যেন মনের সব চাপ দূর হয়ে গিয়ে একটা শিথিল ভাব আসে ও সুন্দর ঘুম হয়।

রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত

আপনি কি সত্যি ক্লান্ত? আপনি ভাবতে পারেন এ আবার কেমন প্রশ্ন? আসলে কথাটা হলো, আপনি যদি সত্যিই বিছানায় যাওয়ার জন্য তৈরি হন - তাহলে সহজে ঘুম এসে যায়। তবে একজনের কাছে যা স্বাভাবিক ঘুমানোর সময় অন্য কেউ সে সময়টাই ঘুমাতে পারেন না। আপনার যদি এ সমস্যা থাকে - তাহলে দিনের বেলা যতো বেশি সম্ভব সময় প্রাকৃতিক আলোর মধ্যে কাটাতে চেষ্টা করুন, এবং সেটা শুরু করুন ঘুম থেকে উঠার সাথে সাথেই।
রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত - বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেছে যে এর ফলে রাত জাগা লোকেদের 'দেহ-ঘড়ি'কে আগেভাগে ঘুমানোর জন্য তৈরি করা যায়। দিনের বেলা ব্যায়াম ঘুমানোর জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। বিছানায় যাবার আগের চার ঘন্টার মধ্যে ব্যায়াম না করাই ভালো। আপনি যদি ছোট্ট শিশু না হন এবং আপনার কম ঘুম হয়, এমন সমস্যা থাকে, তাহলে দিনের বেলা বিশেষ করে বিকেল চারটার পর না ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

ঘুমকে অগ্রধিকার দেওয়া

বিজ্ঞানীরা বলেছেন, আপনার ঘুম কম হলে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উপর বহু বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। রাতের পর রাত যদি ৫ ঘন্টার কম ঘুম হয় - তাহলে হার্ট এ্যাটাক, স্ট্রোক, বা ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়। ঘুম কম হলে তা আপনার আয়ু কমিয়ে দেয়। প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান এবং নিশ্চিত করুন যেন প্রতি রাতে আপনার সাত থেকে আট ঘন্টা ঘুম হয়। প্রতিদিন একই সময় ঘুমাতে যাওয়া এবং একই সময় ঘুম থেকে ওঠা মেনে চলুন ছুটির দিনেও তাই।

পাঠকের মতামত

সম্মানিত পাঠকগণ, নিশ্চয়ই এ পোস্টটি পড়ে আপনারা রাতে ভালো ঘুমের জন্য কি করা উচিত এই উপায় জেনে গেছেন। পোস্টটি আপনার উপকারে আসলে এখনই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে ফেলুন। এছাড়াও স্বাস্থ্য বিষয়ক ও লাইফ স্টাইল বা চমকপ্রদ আর্টিকেল পড়তে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন। পোস্টটি পুরোটা পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
নিত্য প্রয়োজনীয় বিভন্ন তথ্য নিয়মিত জানতে ভিজিট করুনঃ ইসলামিক ইনফো বাংলা
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url